শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৫০ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
গজারিয়া ভাষা শহীদয়াদের স্মরণে আওয়ামী লীগের দোয়া ও আলোচনা সভা মুন্সীগঞ্জে ব‍্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্ক ও গ্রাহক সেবা উন্নয়ন শীর্ষক মতবিনিময় সভা উপ মহাদেশের প্রথম মুসলিম নারী চিকিৎসকের ভাতিজী হতে চান সংরক্ষিত আসনের এমপি ইঁদুর মারার ফাঁদে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে দুই যুবকের মৃত্যু! ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তরী বাংলাদেশ এর সরাইল শাখার আহবায়ক কমিটি গঠন। কোমলমতি শিশুদের পাশে -বিশিষ্ট সমাজ সেবক শফিকুর রহমান সুমন মাদারীপুর পৌর আওয়ামী লীগের আয়োজনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনোত্তর প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত গলাচিপা ডিউজ ক্রিকেট কার্নিভাল শুভ উদ্বোধন গজারিয়া ব্যাটারি চালিত অটোরিকশার ধাক্কায় পাঁচ বছরের এক শিশু নিহত হয়েছে। ডাসারে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে ফোন পেয়েছেন যাঁরা

নতুন মন্ত্রিসভার সদস্য হওয়ার শপথ নিতে ফোন পেয়েছেন আনিসুল হক, আসাদুজ্জামান খান, তাজুল ইসলাম, হাছান মাহমুদ, দীপু মনি, মহিবুল হাসান চৌধুরী। আজ বুধবার সন্ধ্যায় তাঁরা প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বর্তমান মন্ত্রিসভায় আনিসুল হক আইন মন্ত্রণালয়, আসাদুজ্জামান খান স্বরাষ্ট্র, তাজুল ইসলাম স্থানীয় সরকার, হাছান মাহমুদ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় এবং দীপু মনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে রয়েছেন। মহিবুল হাসান চৌধুরী রয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী হিসেবে।

নতুন মন্ত্রণালয়ে তাঁদের কী পদ দেওয়া হবে, তা জানা যাবে দপ্তর বণ্টনের পর।

নতুন মন্ত্রিসভা আগামীকাল বৃহস্পতিবার শপথ নেবে। সন্ধ্যা সাতটায় বঙ্গভবনে শপথ অনুষ্ঠান হবে। এ জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

তারই অংশ হিসেবে নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের জন্য প্রাথমিকভাবে ৪০টি গাড়ি হস্তান্তরের জন্য প্রস্তুত করেছে সরকারি যানবাহন অধিদপ্তর। পাশাপাশি অতিরিক্ত আরও পাঁচটি গাড়ি প্রস্তুত রাখা হয়েছে, যাতে চাওয়ামাত্রই দেওয়া যায়।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও ২৫ মন্ত্রী, ১৯ প্রতিমন্ত্রী এবং তিনজন উপমন্ত্রী ছিলেন।

তফসিল ঘোষণার পর টেকনোক্র্যাট (সংসদ সদস্য নন এমন) দুজন মন্ত্রী ও একজন প্রতিমন্ত্রী পদত্যাগ করেন। তাঁরা হলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম।

এরপর এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি আরও তিনজন প্রতিমন্ত্রী। তাঁরা হলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন। তাঁরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাও করেননি।

মন্ত্রিসভার বাকি সবাই সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন। তাঁদের মধ্যে তিনজন প্রতিমন্ত্রী এবারের নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন। তাঁরা হলেন বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য এবং ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন না পাওয়া এবং নির্বাচনে পরাজিত হওয়া ছয়জন প্রতিমন্ত্রী নতুন মন্ত্রিসভায় থাকছেন না বলেই অনেকে ধরে নিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


আমাদের ফেসবুক পেজ